* শিক্ষা * শান্তি * প্রগতি

* জয় বাংলা * জয় বঙ্গবন্ধু

শিরোনাম:

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের উদ্যোগে চকরিয়ায় প্রীতি ফুটবল ম্যাচ। বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে নওগাঁয় ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল বা‌জেটকে স্বাগত জানিয়ে তিতুমীর কলেজ ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল অসহায় জামিলুরকে ব্যাটারি চালিত রিকশা দিলেন ছাত্রলীগ সম্পাদক বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে সুনামগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে বুয়েট ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল ‘শুধু একটা স্বপ্নপূরণে মৃত্যুকে হাতে নিয়ে ফিরে এসেছি’ – শেখ হাসিনা প্রস্তাবিত বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল বাজেটকে স্বাগত জানিয়ে ছাত্রলীগের আনন্দ মিছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সিনেটের সদস্য হলেন ছাত্রলীগের সভাপতি শোভন ও সঞ্জিত চন্দ্র দাস অার্থিক অনুদানের চেক হস্তান্তর করলেন প্রধানমন্ত্রী চকরিয়া ও মাতামুহুরি সাংগঠনিক উপজেলা ছাত্রলীগের যৌথ উদ্যোগে দোয়া মাহফিল শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগের দোয়া মাহফিল গাজীপুর সদর উপজেলা নির্বাচন উপলক্ষে ছাত্রলীগের গণসংযোগ শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে গাজীপুর মহানগর ছাত্রলীগের দোয়া মাহফিল শেখ হাসিনার কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে গাজীপুর জেলা ছাত্রলীগের দোয়া মাহফিল ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে সেই খামারিকে অার্থিক অনুদান সেই খামারিকে ২০০ হাঁস কেনার টাকা দিলেন নেত্রকোনা জেলা ছাত্রলীগ নেতা ফেলানীর পরিবারের পাশে ছাত্রলীগ সভাপতি শোভন হাঁস হারানো অসহায় আবুল কাশেমের পাশে ছাত্রলীগ

৬ দফা দিবসে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে ছাত্রলীগের শ্রদ্ধাঞ্জলি

৭ জুন, ২০১৯, ১:০০ প্রিন্ট

অাজ ৭ জুন, ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করেছে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ।

শুক্রবার সকালে এই পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হয়।

১৯৬৬ সালের ৭ জুন তখনকার পূর্ব পাকিস্তানের বৈষম্যের শিকার বাঙালিদের ‘মুক্তির সনদ’ হিসেবে পরিচিত হযে ওঠা ৬ দফা দাবি আদায়ে ঢাকাসহ সারা বাংলায় আওয়ামী লীগের ডাকে হরতাল পালিত হয়। হরতাল চলাকালে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও টঙ্গীতে সৈন্যদের গুলিতে মনু মিয়া, সফিক ও শামসুল হকসহ বেশ কয়েকজন নিহত হন। গ্রেপ্তার হন অনেকে। স্বাধিকারের এই আন্দোলন ও আত্মত্যাগের পথ বেয়েই শুরু হয়েছিল বাঙালির চূড়ান্ত স্বাধীনতার সংগ্রাম। পাকিস্তানি শাসন-শোষণ-বঞ্চনা থেকে মুক্তির লক্ষ্যে স্বৈরাচার আইয়ুব সরকারের বিরুদ্ধে ১৯৬৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি লাহোরে তৎকালীন পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের সব বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ে ডাকা এক জাতীয় সম্মেলনে পূর্ব বাংলার জনগণের পক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৬ দফা দাবি উত্থাপন করেন। পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১১ ফেব্রুয়ারি দেশে ফিরে ৬ দফার পক্ষে দেশব্যাপী প্রচারাভিযান শুরু করেন এবং বাংলার আনাচে-কানাচে প্রত্যন্ত অঞ্চলে গিয়ে জনগণের সামনে ৬ দফার প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেন। বাংলার সর্বস্তরের জনগণ এই ৬ দফা সম্পর্কে সম্যক ধারণা অর্জন করে এবং ৬ দফার প্রতি স্বতঃস্ফূর্ত সমর্থন জানায়। ৬ দফা হয়ে ওঠে পূর্ব বাংলার শোষিত-বঞ্চিত মানুষের মুক্তির সনদ। ৬ দফার প্রতি ব্যাপক জনসমর্থন এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জনপ্রিয়তায় ভীত হয়ে স্বৈরাচার আইয়ুব সরকার ১৯৬৬ সালের ৮ মে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠায়। ৬ দফা আন্দোলন ১৯৬৬ সালের ৭ জুন নতুন মাত্রা পায়। বাঙালির অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে ৬ দফার প্রতি বাঙালির

পাঠকের মতামত:

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে