* শিক্ষা * শান্তি * প্রগতি

* জয় বাংলা * জয় বঙ্গবন্ধু

শিরোনাম:

২১শে আগস্ট: নেতা-কর্মীরা তাদের জীবন দিয়েই শেখ হাসিনাকে বাঁচিয়েছে ২১ আগস্টের নিহতদের স্মরণে ছাত্রলীগের ফুলেল শ্রদ্ধা চকরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালিত বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে গাজীপুর জেলা ছাত্রলীগের দোয়া মাহফিল প্রেস বিজ্ঞপ্তি আপোষহীন মহানায়ক বঙ্গবন্ধু সাধারণ মানুষের হৃদয়ে অম্লান হয়ে থাকবে। জঙ্গিবাদের মূলোৎপাটনের দাবিতে ছাত্রলীগের মৌন মিছিল বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানাতে চেয়েছিল তারেক রহমান: শোভন প্রেস বিজ্ঞপ্তি জাতির পিতার রক্তের ঋণ শোধ করতে হবে: প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুকে ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড’ আখ্যা জাতীয় শোক দিবসে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ “সেই কালো রাত এবং বঙ্গবন্ধু” বঙ্গবন্ধুর খুনিদের ফেরাতে কূটনৈতিক প্রচেষ্টা জোরদার করা হয়েছে: কাদের কক্সবাজারকে দুর্গন্ধমুক্ত রাখতে কোরবানি পশুর বর্জ্য পরিষ্কার করলো জেলা ছাত্রলীগ শোক দিবসে টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের শ্রদ্ধাঞ্জলি প্রাণের মানুষদের সমাধিতে গোলাপের পাপড়ি ছড়ালেন শেখ হাসিনা ১৫ ই আগষ্টের খুনি ও ২১ শে আগষ্টের গ্রেনেড হামলাকারীদের শাস্তির দাবিতে যশোর ছাত্রলীগের মানববন্ধন আজ পিতা হারানোর শোকে কাঁদবে বাঙালি

প্রধানমন্ত্রীর পরিবারের সবাই ফুটবলপ্রেমী

১২ অক্টোবর, ২০১৮, ৭:১৮ প্রিন্ট

বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ এবারও নিয়ে গেলো বিদেশের একটি দল। স্বাগতিকদের সোনালী ট্রফি ছুঁয়ে দেখা হলো না এই আসরেও। চ্যাম্পিয়ন ফিলিস্তিনকে অভিনন্দন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বললেন, তাদের পরিবারের সদস্যরা ভীষণ ফুটবলভক্ত।

শুক্রবার বঙ্গবন্ধু জাতীয় স্টেডিয়ামে উপস্থিত ছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা। চ্যাম্পিয়ন ও রানার্স-আপ দলকে ম্যাচ শেষে অভিনন্দন জানালেন প্রধানমন্ত্রী, ‘চ্যাম্পিয়ন ফিলিস্তিন দলকে অভিনন্দন জানাচ্ছি। রানার্স-আপ তাজিকিস্তানকেও আন্তরিক অভিনন্দন জানাচ্ছি আমি।’

প্রধানমন্ত্রী জানালেন, তার পুরো পরিবারের ফুটবল প্রীতির কথা। বঙ্গবন্ধুর পরিবার যে ফুটবলকে ভালোবাসে, সেই কথা গর্বের সঙ্গেই জানালেন তিনি, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু সব সময় খেলাধুলায় আন্তরিক ছিলেন। আমার দাদা ফুটবল খেলতেন, আমার বাবা জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ফুটবল খেলতেন। আমার ভাই শেখ কামাল, শেখ জামাল সবাই ফুটবল খেলতো। আমার নাতিপুতি যারা আছে তারাও ফুটবল খেলে। আমার ছেলে জয় ও মেয়ে পুতুলের সন্তানরাও ফুটবল খেলে। আমাদের গোটা পরিবারই ফুটবল খেলা পরিবার।’

সফলভাবে টুর্নামেন্ট শেষ করায় সবাইকে অভিনন্দন জানান প্রধানমন্ত্রী। তবে এসময় বিষাদও ফুটে ওঠে তার কণ্ঠে। প্রধানমন্ত্রীর প্রত্যাশা, মেয়েদের মতো ছেলেরাও একদিন সাফল্য বয়ে আনবে দেশের জন্য, ‘আমি খুবই আনন্দিত যে বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল সফলভাবে শেষ হয়েছে। ফুটবল হচ্ছে সবচেয়ে জনপ্রিয় খেলা। তাই এই খেলার আরও উন্নতি হোক। আমাদের মেয়েরা অনূর্ধ্ব-১৬, ১৮ ফুটবলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। আশা করি, ছেলেরাও পিছিয়ে থাকবে না, তারাও ভবিষ্যতে এগিয়ে যাবে। ফুটবলের উন্নয়নে যা যা করণীয় সব কিছুই আমরা করবো।’

পাঠকের মতামত:

এ পাতার আরও সংবাদ

উপরে